Rojar Niyot, Sehri & Iftar Doa – রোজার নিয়ত, সাহরি ও ইফতারের দোয়া

Ramadan, the month of forgiveness and salvation, has returned with endless mercy year after year. Ramadan comes to prepare our inner world. May the fear of God take place there. Fasting is obligatory for adult Muslim men and women. By fasting, people are blessed with nearness to Allah and taqwa.

On the occasion of fasting, Allah said, O believers! The fast of Ramadan has been made obligatory upon you, as it was made obligatory upon those before you. So that you may attain piety. (Surat al-Baqara, 183)

The Prophet (peace and blessings of Allaah be upon him) said: Whoever fasts Ramadaan in the hope of reward with faith, (in another narration) prays Taraaweeh in the hope of reward with faith, all his past sins are forgiven. (Bukhari Sharif: Hadith No. 1901)

Rojar Niyot, Sehri & Iftar Doa

On the occasion of fasting, Allah said, ‘O you who believe! Fasting has been made obligatory upon you; As was enjoined on those before you; So that you may attain taqwa (self-purification). (Surat al-Baqara: 183)

It is necessary to fast for Ramadan. In the hadith, the beloved Prophet Muhammad (peace and blessings of Allaah be upon him) has urged us to take sahri. He also urged to take Iftar in time.

Amr ibn al-As (may Allaah be pleased with him) narrated that the Messenger of Allaah (peace and blessings of Allaah be upon him) said: (That is, Muslims eat sahri and Jews and Christians do not eat sahri). (Muslim, Nasai)

It is important to fast after eating sahri. Just as sahri and iftar are important in fasting, so is the intention of fasting and the iftar prayer.

Rojar Niyot

نَوَيْتُ اَنْ اُصُوْمَ غَدًا مِّنْ شَهْرِ رَمْضَانَ الْمُبَارَكِ فَرْضَا لَكَ يَا اللهُ فَتَقَبَّل مِنِّى اِنَّكَ اَنْتَ السَّمِيْعُ الْعَلِيْم

আরবি নিয়ত: নাওয়াইতু আন আছুম্মা গাদাম মিন শাহরি রমাজানাল মুবারাকি ফারদাল্লাকা, ইয়া আল্লাহু ফাতাকাব্বাল মিন্নি ইন্নিকা আনতাস সামিউল আলিম।

বাংলায় নিয়ত: হে আল্লাহ! আমি আগামীকাল পবিত্র রমজানের তোমার পক্ষ থেকে নির্ধারিত ফরজ রোজা রাখার ইচ্ছা পোষণ (নিয়্যত) করলাম। অতএব তুমি আমার পক্ষ থেকে (আমার রোযা তথা পানাহার থেকে বিরত থাকাকে) কবুল কর, নিশ্চয়ই তুমি সর্বশ্রোতা ও সর্বজ্ঞানী।

ইফতারের আগ মুহূর্তে বেশি বেশি ইসতেগফার পড়া

اَسْتَغْفِرُ اللهَ الْعَظِيْم – اَلَّذِىْ لَا اِلَهَ اِلَّا هُوَ اَلْحَيُّ الْقَيُّوْمُ وَ اَتُوْبُ اِلَيْهِ لَا حَوْلَ وَ لَا قُوَّةَ اِلَّا بِاللَّهِ الْعَلِىِّ الْعَظِيْم

আসতাগফিরুল্লাহাল আজিম, আল্লাজি লা ইলাহা ইল্লাহু আল-হাইয়্যুল ক্বাইয়্যুম, ওয়া আতুবু ইলাইহি লা হাওলা ওয়ালা কুয়্যাতা ইল্লা বিল্লাহিল আলিয়্যিল আজিম।

Iftar Doa

اَللَّهُمَّ لَكَ صُمْتُ وَ عَلَى رِزْقِكَ وَ اَفْطَرْتُ بِرَحْمَتِكَ يَا اَرْحَمَ الرَّاحِيْمِيْن

উচ্চারণ: আল্লাহুম্মা লাকা ছুমতু ওয়া আলা রিযক্বিকা ওয়া আফতারতু বিরাহমাতিকা ইয়া আরহামার রাহিমিন।

অর্থ: হে আল্লাহ! আমি তোমারই সন্তুষ্টির জন্য রোজা রেখেছি এবং তোমারই দেয়া রিযিক্বের মাধ্যমে ইফতার করছি।

ইফতারের পর আল্লাহর শোকরিয়া আদায় করে দোয়া পড়া

হজরত আবদুল্লাহ ইবনে ওমর রাদিয়াল্লাহু আনহু থেকে বর্ণিত তিনি বলেন, রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম যখন ইফতার করতেন তখন বলতেন-

ذَهَبَ الظَّمَاءُ وَابْتَلَتِ الْعُرُوْقُ وَ ثَبَتَ الْأَجْرُ اِنْ شَاءَ اللهُ

উচ্চারণ: ‘জাহাবাজ জামাউ; ওয়াবতালাতিল উ’রুকু; ওয়া ছাবাতাল আঝরূ ইনশাআল্লাহ।’

অর্থ:  (ইফতারের মাধ্যমে) পিপাসা দূর হলো, শিরা-উপসিরা সিক্ত হলো এবং যদি আল্লাহ চান সাওয়াবও
স্থির হলো ‘ (আবু দাউদ, মিশকাত)

আল্লাহ তাআলা মুসলিম উম্মাহকে সাহরির পর নিয়ত করা, ইফতারের আগে তাওবা-ইসতেগফার করা, ইফতারের সময় দোয়া পড়া এবং ইফতারের পর শোকরিয়া আদায় করে দোয়া পড়ার তাওফিক দান করুন। আমিন।

Rojar Niyot, Sehri & Iftar Doa in Bangla